April 23, 2024, 2:36 am

ফিলিস্তিন ইস্যুতে সমর্থন অব্যাহত রাখার অঙ্গিকার বাংলাদেশের

Reporter Name

ফিলিস্তিনের গাজা ভূ-খণ্ডে পুনর্দখলের ইসরাইলি পরিকল্পনার বিরুদ্ধে এবং একই সঙ্গে গাজাবাসীকে তাদের নিজস্ব ভূখণ্ড বিতাড়িত না করা এবং ফিলিস্তিনিদের জন্য একটি পৃথক স্বাধীন রাষ্ট্র গড়ার অধিকারের পক্ষে অবস্থান পুনর্ব্যক্ত করেছে বাংলাদেশ।

ফিলিস্তিনের প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আব্বাসকে লেখা এক চিঠিতে বাংলাদেশের অবস্থান পুনর্ব্যক্ত করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। স্থানীয় সংবাদমাধ্যমের প্রতিবেদনে এ খবর দেয়া হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, আমি গত ৮ অক্টোবর থেকে গাজা এবং পশ্চিম তীরে নিরবচ্ছিন্ন ইসরাইলি গণহত্যায় শিশু, নারী ও পুরুষসহ নিরপরাধ মানুষের প্রাণহানির মর্মান্তিক ক্ষয়ক্ষতিতে ফিলিস্তিনের সরকার ও ভ্রাতৃপ্রতিম জনগণের প্রতি আন্তরিক সমবেদনা জানাচ্ছি। আমি ১৯ মার্চ আপনার দূত এবং ফাতাহ কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদকের মাধ্যমে আমাকে লেখা চিঠির প্রাপ্তি স্বীকার করছি।

চিঠিতে গাজায় একটি দীর্ঘমেয়াদী যুদ্ধবিরতির পক্ষে অবস্থান জানিয়ে বেসামরিক নাগরিকদের জীবন ও অবকাঠামো রক্ষায় সংশ্লিষ্ট সকলকে সংযম প্রদর্শনের আহ্বান জানিয়েছেন সরকারপ্রধান।

গাজার জন্য ইসরাইলি প্রধানমন্ত্রীর যুদ্ধোত্তর পরিকল্পনা সম্পর্কে অবগত থাকার কথা জানিয়ে শেখ হাসিনা মাহমুদ আব্বাসের গভীর উদ্বেগকে সমর্থন করে তিনি বলেছেন, পরিকল্পনাটি ফিলিস্তিনি জনগণের অধিকারের অবমাননা এবং আন্তর্জাতিক আইন ও চুক্তির লঙ্ঘন।

শেখ হাসিনা বলেন, এটা হতাশাজনক যে পরিকল্পনাটি সংঘাত বন্ধে এই দীর্ঘস্থায়ী কোনো বাস্তব পথ প্রদান করতে ব্যর্থ হয়েছে। বরং, এর উদ্দেশ্য হচ্ছে গাজায় ফিলিস্তিনিদের বৈধ জাতীয় আকাঙ্খাকে দমন করা এবং ভূমির ওপর ইসরাইলি নিয়ন্ত্রণ স্থায়ী করা। এই প্রেক্ষাপটে, আমরা আমাদের দৃঢ় অবস্থান পুনর্ব্যক্ত করছি যে আমরা গাজার যে কোনো অংশ পুনরুদ্ধার করার জন্য ইসরাইলি পরিকল্পনার বিরুদ্ধে।

‘গাজাবাসীদের তাদের নিজস্ব অঞ্চল থেকে বিতাড়িত করা হবে না, গাজা ভূ-খণ্ড ছোট করা হবে না, ইউএনআরডব্লিউএ-এর বাস্তবায়নের ক্ষমতার উপর কোনও সীমাবদ্ধতা নেই। ম্যান্ডেট, এবং ইসরাইলের পাশাপাশি একটি পৃথক ও স্বাধীন রাষ্ট্রে ফিলিস্তিনিদের অধিকার প্রত্যাখ্যান করা হবে না,’ যোগ করেন তিনি।

প্রধানমন্ত্রী তার চিঠিতে আরও বলেন, আমরা আরও মনে করি যে সামরিক উপায় এই সংঘাতের সমাধান নয়। জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের রেজুলেশন এবং আন্তর্জাতিক বিচার আদালতের (আইসিজে) আদেশের উপর ভিত্তি করে চলমান সংকট সমাধানের জন্য একটি বিশ্বাসযোগ্য প্রক্রিয়া বাস্তবায়নের সময় এসেছে, যা শুধুমাত্র ফিলিস্তিনি ও ইসরাইলিদের পাশাপাশি বসবাসকারী দ্বিরাষ্ট্রীয় সমাধানের মাধ্যমেই অর্জন করা যেতে পারে।

সরকারপ্রধান বলেন, দখলদারিত্ব ও গণহত্যার শিকার একটি জাতি হিসেবে আমরা প্রকৃতপক্ষে দখলকৃত ও নির্যাতিত ফিলিস্তিনিদের দুর্দশা অনুভব করি। এইভাবে, আমরা আন্তর্জাতিক প্ল্যাটফর্মে ফিলিস্তিনের জনগণের সাথে আমাদের পূর্ণ সংহতি প্রকাশ করছি, ইসরায়েলি দখলদারিত্বের নিন্দা জানাচ্ছি এবং আন্তর্জাতিক আইনের ভিত্তিতে একটি ন্যায়সঙ্গত সমাধানের পক্ষে কথা বলছি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, মুসলিম ভাই হিসেবে আমরা পূর্ব জেরুজালেমের রাজধানী হিসাবে ১৯৬৭ সালের সীমানাসহ স্বাধীন রাষ্ট্রের জন্য আপনার যথার্থ আকাঙ্খার প্রতি আমাদের সমর্থনে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ ও অবিচল থাকব। এই প্রেক্ষাপটে আমরা সকল আন্তর্জাতিক ফোরামে এবং এর বাইরেও আমাদের সমর্থনের মাধ্যমে জাতিসংঘে ফিলিস্তিনের পূর্ণ সদস্যপদ পাওয়ার জন্য আপনার প্রচেষ্টাকে সমর্থন করার জন্য আমাদের অঙ্গীকার পুনর্ব্যক্ত করছি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


Our Like Page